শিশু ধর্ষণ মামলার আসামি বন্দুকযুদ্ধে নিহত সিরিয়ায় গণকবর থেকে ৫০টি মৃতদেহ উদ্ধার নতুন চলচ্চিত্রে পপি বাস-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ৪
||   শিশু ধর্ষণ মামলার আসামি বন্দুকযুদ্ধে নিহত      ||   সিরিয়ায় গণকবর থেকে ৫০টি মৃতদেহ উদ্ধার      ||   নতুন চলচ্চিত্রে পপি      ||   বাস-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ৪      ||   দাকোপে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মিডডে মিলের সূচনা      ||   চরভদ্রাসনে আওয়ামীলীগের জনসভা সম্পন্ন      ||   টর্নেডো কেড়ে নিল কাশিয়ানীর ফুল মিয়ার জীবিকার সম্বল      ||   মুকসুদপুরে অপহৃত শিক্ষার্থী উদ্ধার, গ্রেফতার -১      ||   কিউবায় কাস্ত্রো শাসনের অবসান, নতুন নেতা মিগেল      ||   এবার শ্রাবন্তীর প্রেমে মজেছেন শাকিব!      ||   চরভদ্রাসনে সাপের কামড়ে ১ ব্যক্তির মৃত্যু      ||   কোটালীপাড়ায় ঐতিহ্যবাহী ঘোড় দৌড় ও গ্রামীণ মেলা অনুষ্ঠিত      ||   কাশিয়ানীতে সওজের জায়গায় চার শতাধিক অবৈধ স্থাপনা      ||   রাণীনগরে আওয়ামীলীগ নেতাকে হত্যার চেষ্টা ॥ তিন সন্ত্রাসীকে গণধোলাই      ||   সিটি নির্বাচনে বিএনপির সেনা মোতায়েনের দাবি অযৌক্তিক: কাদের       
দাকোপে চলন্তিকা এবং ডে-নাইট এনজিও সদস্যদের টাকা নিয়ে উধাউ
জিএম,আজম,দাকোপ(খুলনা) প্রতিনিধি: ১৩/৪/২০১৮- খুলনার দাকোপ উপজেলা থেকে একের পর এক সদস্যদের টাকা নিয়ে উধাউ হয়েছে সুদ ব্যবসায়ী এনজিও গুলো। প্রতারণার শিকার হয়েছে দরিদ্র ও হতদরিদ্র মানুষের অভিযোগ। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত দুই বছরে দাকোপ থেকে টাকা নিয়ে উধাও হয়েছে মুন ফাউন্ডেশন, কয়রা মহিলা উন্নয়ন সংস্থা এবং সম্প্রতি উধাও হয়েছে চলন্তিকা যুব সোসাইটি ও ডেনাইট পরিবেশ উন্নয়ন সংস্থা নামের দুটি সুদ ব্যবসায়ের এনজিও। এদের মধ্যে আর্থিক লেনদেন করার জন্য কোনটির বৈধ অনুমোদন আছে আবার কোনটির নেই। সম্প্রতি লাপাত্তা হওয়া এনজিও দুটির (চলন্তিকা এবং ডে-নাইট) কর্মীরা সদস্যদের কাছ থেকে দৈনিক ১০টাকা থেকে শুরু করে গ্রাহকের সাধ্যমত ও চুক্তি অনুযায়ী সঞ্চয় আদায় করত। প্রতি ১২ মাস পর ১৩ মাসে সদস্যদের মূল টাকাসহ সুদের টাকা ফিরিয়ে দেওয়ার কথা থাকলেও প্রথম প্রথম নিয়ম মাফিক হয়, পরে আর হয়নি। চালনা লেকের পাড়ের হতদরিদ্র পঙ্গু নিরাপদ মিস্ত্রী বলেন, আমি ভিক্ষা করে দৈনিক ১০টাকা করে ৯মাস ধরে ডে নাইট সংস্থার কর্মীর কাছে সঞ্চয় জমা করেছি আমার টাকা আমি পাব তো? একই ধনণের প্রশ্ন নিরাপদর বিধবা বোন সবিতা মিস্ত্রীর। সবিতা মিস্ত্রী বলেন, আমি পরের বাড়ী খেটে ২০টাকা করে সঞ্চয় দিয়েছি আমার কষ্টার্জিত টাকা ফেরত দেবে তো? চালনা বাজারের ঐশি মিষ্টান্ন ভান্ডারের মালিক দীলিপ মন্ডল বলেন, আমি চলন্তিকা যুব সোসাইটিতে ১৭ হাজার টাকা সঞ্চয় করেছি। চালনা বাজারের ফটোস্ট্যাট দোকানদার কিশোর বিশ্বাসের ৩৪ হাজার লেকের পাড়ের পূর্নিমা হালদারের ২টি সঞ্চয় হিসাবে রয়েছে। এমনি করে অগনিত সদস্যরা সংস্থা দুটিতে সঞ্চয় করে প্রতারণার শিকার হয়েছে। এদিকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে সংস্থা চলে যাওয়ায় বিপদে রয়েছে সংস্থার মাঠ কর্মীরা। কারণ এরা সবাই স্থানীয় বাসিন্দা তাই সদস্যরা তাদের টাকার জন্য কর্মীদের সাথে ইতোমধ্যে বাক-বিতন্ডা শুরু করেছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কর্মীরা বলেন, এমনটা হবে আমরাও ভাবতে পারিনি চাকুরী করতে এসে এখন বিপদে পড়েছি। সংস্থা দুটির শাখা ব্যবস্থাপকরাও স্থানীয়, তাই তাঁরা রয়েছেন আরও ঝুঁকির মধ্যে। মুঠোফোনে বার বার চেষ্টা করে সংযোগ পাওয়া সম্ভব হয়নি চলন্তিকা যুব সোসাইটির উপজেলা শাখা ব্যবস্থাপক গৌতম বিশ্বাসের সাথে। এ বিষয়ে জানার জন্য ডে-নাইট পরিবেশ উন্নয়ন সংস্থার উপজেলা শাখা ব্যবস্থাপক সুফলা মন্ডলের মুঠোফোনে কল দিলে রিসিভ করে সাংবাদিক পরিচয় জেনে কথা না বলে ফোন বন্ধ করে দেয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মারুফুল আলম বলেন, আমি সামাজিক যোগাযোগ (ফেসবুক) মাধ্যমে বিষয়টি জেনেছি, এখনও কেউ অভিযোগ করেনি তার পরও আমি সংস্থা দুটির বিষয়ে খোঁজ-খবর নিচ্ছি। অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক চলন্তিকা যুব সোসাইট ও ডে নাইট পরিবেশ উন্নয়ন সংস্থায় তাদের কষ্টের টাকা সঞ্চয় করেছিল তাই উপজেলার বাজুয়া এবং চালনা পৌরসভাতে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। বিষয়টি যখন তখন সহিংসতায় রূপ নিতে পারে বলে আশংকা করছেন এলাকাবাসী।# দাকোপে প্রতারণার দায়ে ডে-নাইট এনজিওর ব্যবস্থাপক আটক জিএম, আজম,দাকোপ (খুলনা) প্রতিনিধিঃ খুলনার দাকোপ উপজেলায় থেকে সদস্যদের টাকা আত্মসাৎ করে উধাও হয় বেসরকারী এনজিও ডে-নাইট পরিবেশ উন্নয়ন সংস্থা। প্রতারণার দায়ে সংস্থাটির উপজেলা শাখা ব্যবস্থাপক সুফলা মন্ডল সদস্যদের হাতে আটক হয়েছে বলে জানা গেছে। জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার শাখা ব্যবস্থাপকের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট অভিযোগ করেন উক্ত সংস্থার সদস্যরা। অভিযোগের বিষয় জানতে পেরে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় পানখালী ফেরীঘাট এলাকা থেকে ১২ এপ্রিল সন্ধা ৬টায় শাখা ব্যবস্থাপককে আটক করে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে নিয়ে আসেন প্রতারণার শিকার দরিদ্র ও হতদরিদ্র মানুষেরা। সংস্থাটির কর্মীর সুত্রে জানা যায়, উপজেলার চালনা বাজারে অবৈধভাবে ২৭ জন কর্মী নিয়োগ করা আছে। তারা ৭ বছরে সাড়ে ৫ হাজার সদস্যদের নিকট থেকে দৈনিক ১০টাকা থেকে শুরু করে গ্রাহকের সাধ্য ও চুক্তি অনুযায়ী সঞ্চয় আদায় করত। এদিকে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে সংস্থা চলে যাওয়ায় বিপদে রয়েছে সংস্থার মাঠ কর্মীরা। কারণ এরা সবাই স্থানীয় বাসিন্দা, তাই সদস্যরা তাদের টাকার জন্য কর্মীদের সাথে ইতোমধ্যে বাক-বিতন্ডা শুরু করেছে। পানখালী গ্রামের মাঠ কর্মী জেসমিন খাতুন বলেন, আমাকে মৌখিকভাবে নিয়োগ করেন সুফলা মন্ডল। সদস্যরা আমাকে চেনে। তারা আমার কাছে টাকা দিয়েছে। এখন সংস্থাটি চলে যাওয়ায় গ্রাহকরা আমাকে বিরক্ত করছে। তাই ব্যবস্থাপককে আটক করে সদস্যদের কাছে দিয়েছি। চালনা বাজারের মাঠ কর্মী দিপা সাহা, হাসিনা বেগমসহ আরও অনেকে জানান, সুফলা মন্ডলের অধীনে আমরা কাজ করতাম। প্রতিদিন যে টাকা আদায় করতাম তা অফিসে জমা দিয়ে থাকি। তারপর মাস শেষে আদায়ের উপর প্যার্সেন্ট হিসাব করে আমাদের বেতন দিয়ে থাকে। নির্ধারিত কোন বেতন ছিল না। চালনা লেকের পাড়ের হতদরিদ্র পঙ্গু নিরাপদ মিস্ত্রী বলেন, আমি ভিক্ষা করে দৈনিক ১০টাকা করে ৯মাস ধরে ডে নাইট সংস্থার কর্মীর কাছে সঞ্চয় জমা করেছি আমার টাকা আমি পাব তো? একই ধরণের প্রশ্ন নিরাপদর বিধবা বোন সবিতা মিস্ত্রীর। সবিতা মিস্ত্রী বলেন, আমি পরের বাড়ী খেটে ২০টাকা করে সঞ্চয় দিয়েছি আমার কষ্টার্জিত টাকা ফেরত দেবে তো? চালনা বাজারের রুহুল আমিন বলেন, আমি প্রতি মাসে ৩ হাজার টাকা করে ১১ মাসে ৩৩ হাজার টাকা সঞ্চয় করেছি। চালনার ডাকবাংলো মোড়ে ফটোস্ট্যাট দোকানদার কিশোর বিশ্বাসের ৩৪ হাজার লেকের পাড়ের পূর্নিমা হালদারের ২টি সঞ্চয় হিসাবে রয়েছে বলে জানায়। এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হয় শাখা ব্যবস্থাপক সুফলা মন্ডলের কাছে। তিনি কোন কিছু না জানিয়ে বলেন আমি এখন কিছু বলতে পারছি না। আমার অফিসে গিয়ে দেখে আসেন। কিন্তু অফিসে গিয়ে দেখা যায় তালা ঝুলানো। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মারুফুল আলম বলেন, সন্ধার পর এনজিওর কর্মী ও আমানত কারীরা শাখা ব্যবস্থাপক সুফলা মন্ডলকে আমার বাস ভবনে নিয়ে আসলে উভয়ের নিকট সব কিছু শুনেছি। পরে তাকে আইণের মাধ্যমে থানায় প্রেরণ করি। দাকোপ থানা অফিসার ইনচার্জ(ওসি) মোঃ সাহাবুদ্দিন চৌধুরী বলেন, দেনাদার এবং পাওনাদার উভয়ের মধ্যে একটি চুক্তির সিদ্ধান্ত হয়। সদস্যদের দাবী অনুযায়ী প্রথম অবস্থায় সুফলার কাছ থেকে ৫টি চেকের মাধ্যমে ১২ লক্ষ টাকার আমানত ও ১ মাসের অঙ্গীকার নেওয়া হয় বলে জানান উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান এ্যাড. শুভদ্রা সরকার। তিনি আরও জানান, গ্রাহকদের বাকী টাকা পরবর্তীতে পরিশোধ করবে বলে সিন্ধান্ত হয় শাখা ব্যবস্থাপকের সাথে। অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক চলন্তিকা যুব সোসাইট ও ডে-নাইট পরিবেশ উন্নয়ন সংস্থায় তাদের টাকা সঞ্চয় করেছিল তাই উপজেলার বাজুয়া এবং চালনা পৌরসভাতে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। বিষয়টি বৃহস্পতিবারে চরম উত্তেজন্র রুপ নেয় পাওনাদারদের মধ্যে।

অপরাধ জগত
শিশু ধর্ষণ মামলার আসামি বন্দুকযুদ্ধে নিহত

কাশিয়ানীতে সওজের জায়গায় চার শতাধিক অবৈধ স্থাপনা

রাণীনগরে আওয়ামীলীগ নেতাকে হত্যার চেষ্টা ॥ তিন সন্ত্রাসীকে গণধোলাই

প্রশ্নফাঁস চক্রের মূল হোতাসহ আটক ৪

মুকসুদপুরে ১৫ বোতল ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

দাকোপের বানিশান্তায় সরকারি খাল ভরাট করে বিক্রি করছে চেয়ারম্যান

৩০ কোটি টাকানিয়ে লা-পাত্তা চলন্ততিকা ও ডে-নাইট এনজিওর প্রতারণায় তপ্ত দাকোপ

দাকোপে প্রতারণার দায়ে ডে-নাইট এনজিওর ব্যবস্থাপক আটক

দাকোপে চলন্তিকা এবং ডে-নাইট এনজিও সদস্যদের টাকা নিয়ে উধাউ

অস্ত্রসহ মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার

 
 
All rights reserved. Copyright © 2018 ONLINE GBANGLANEWS || Developed by : JM IT SOLUTION
জি বাংলা নিউজ পোর্টালের কোন সংবাদ,ছবি, কোন তথ্য পূর্বানুমতি ছাড়া কপি বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।